Dhaka, Bangladesh
    বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৯
    ২৩ Rabi' I, ১৪৪১
    ওয়াক্তসময়
    সুবহে সাদিকভোর ৪:৫৭ পূর্বাহ্ণ
    সূর্যোদয়ভোর ৬:১৬ পূর্বাহ্ণ
    যোহরদুপুর ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ
    আছরবিকাল ২:৫০ অপরাহ্ণ
    মাগরিবসন্ধ্যা ৫:১২ অপরাহ্ণ
    এশা রাত ৬:৩০ অপরাহ্ণ
Facebook By Weblizar Powered By Weblizar

বিনোদন

মো: ইমাম উদ্দিন সুমন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি ঃ ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেতা ফেরদৌস ও অভিনেত্রী পূর্ণিমা শুটিং সেটে গুরুতর আহত হয়েছেন। নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জে নির্মাণাধীন ‘গাঙচিল’-এর সেটে তারা মটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারাত্মক আঘাত পান।
১০ ফেব্রুয়ারি, রোববার সকালে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন সিনেমাটির পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে ফেরদৌস-পূর্ণিমাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বিকালে তাদেরকে নোয়াখালী সদরে নেওয়া হবে। শরীরের আঘাত কতটা গুরুতর সেটা জানার জন্য দুজনকে এক্স-রে করা হবে।
নায়ক ফেরদৌস নিজেও তার দুর্ঘটনায় কথা জানিয়ে বলেছেন, পূর্ণিমা মোটর সাইকেল চালিয়ে শট দিচ্ছিল। আমি পেছনে বসা ছিলাম। চলন্ত অবস্থায় মোটর সাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুজনেই পড়ে যাই। আঘাত বেশ গুরুতর।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের উপন্যাস ‘গাঙচিল’ নিয়ে ছবি বানাচ্ছেন নির্মাতা নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল। ‘গাঙচিল’ ছবিতে একজন সাংবাদিকের (সাগর) চরিত্রে অভিনয় করছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌসকে। আর পূর্ণিমা অভিনয় করছেন (মোহনা) এনজিও কর্মী হিসেবে।
৬ ফেব্রুয়ারি থেকে নোয়াখালী জেলার গাঙচিল কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৮ নং চর এলাহি ইউনিয়নে এর শুটিং শুরুহয়েছে চলবে ১২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

দীর্ঘদিন নিজের কোনো চলচ্চিত্র মুক্তি পায়নি। সে কারণে অবশ্য স্মৃতির অতলে হারিয়েও যাননি পুনম পান্ডে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে রীতিমতো সক্রিয় তিনি ও তার ফ্যানরা।

এবারের বড়দিন উপলক্ষে বড় ধামাকা নিয়ে এই মুহূর্তে সংবাদ শিরোনামে তিনি। ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট ম্যাচে ভারত জিতলে তিনি পোশাক খুলবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর সেটা অক্ষরে অক্ষরে রক্ষা করেছেন।

তার জন্মদিনে পোস্ট করা সেই ভিডিও নিয়ে উত্তাল হয়েছিল নেটিজেনরা। এবার বড়দিনে তার আরেকটি ভিডিও নিয়ে শুরু হয়েছে হইচই।

জানা গেছে, পুনম এক ইউটিউব ভিডিও দিয়ে নিজের ফ্যানদের ক্রিসমাসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‘সেক্সি সান্টা’ সেজে। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কোনো হোটেলের ঘরে তিনি অবস্থান করছেন। পরনে সান্তা ক্লজের পোশাক। তার পর একে একে সেই পোশাক খুলতে শুরু করেন তিনি।

অক্টোবরে ‘সুগার বিস্কিট’ নামের এক ছবির ট্রেলারে শক্তি কাপুরের সঙ্গে যে আগুন জ্বেলেছেন পুনম, এই ভিডিও তারই পরিপূরক বলে মনে করছেন অনেকেই।

ভারতের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কাস্টিং কাউচ ও যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছেন বহু অভিনেত্রী। প্রকাশ্যে মুখও খুলেছেন তাঁরা। সম্প্রতি হলিউড প্রযোজক হার্ভে উইনস্টেনকে নিয়ে একটা বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। তাঁর যৌন লালসার শিকার হয়েছেন বহু অভিনেত্রী। মিডিয়ার সামনে মুখও খুলেছেন তাঁরা। আর এবার যৌন হেনস্থা নিয়ে মুখ খুললেন স্বরা ভাস্কর। শুটিং চলাকালীন খোদ পরিচালকের যৌন লালসার শিকার হন তিনি।

বলেন, তখন ইন্ডাস্ট্রিতে একেবারেই নতুন। এর আদব কায়দা খুব একটা বুঝতাম না। একটা ছবির শুটিং শুরু হয়ে গিয়েছিল। একটি প্রত্যন্ত এলাকায় চলছিল শুটিং। শুটিং চলাকালীন পরিচালক আমাকে বিভিন্ন আপত্তিকর মেসেজ করতেন। সব সময় চোখে চোখে রাখতেন। আর রাতে ছবির দৃশ্য নিয়ে কিছু আলোচনার জন্য তাঁর রুমে ডেকে পাঠাতেন। এরপর ভালোবাসা ও সেক্স নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন তিনি। তারপর একদিন রাতে মদ্যপ অবস্থায় আমার ঘরে আসেন। আমাকে জড়িয়ে ধরতে চান।

আরও বলেন, রীতিমতো ভয়ে ভয়ে আমার দিন কাটত। পুরো একা হয়ে গিয়েছিলাম আমি। এরপর থেকে আমি শুটিং শেষ হয়ে গেলেই ঘরের আলো বন্ধ করে দিতাম। অন্ধাকারের মধ্যেই মেকআপ তুলতাম। আমি যে জেগে রয়েছি সেটা যাতে বাইরের কেউ বুঝতে না পারে তার জন্যই অন্ধকারে সব কাজ করতাম।”

এর পরবর্তী অভিজ্ঞতা সম্পর্কে স্বরা বলেন, যারা আমাকে কাস্ট করেছিল তাদেরই যৌন হেনস্থার শিকার হই। এমনকী, তাদের প্রস্তাব নাকচ করে দেওয়ায় বেশ কয়েকটি ছবি থেকে আমাকে বাদ দেওয়া হয়। এই বিষয়টা আমাকে দুর্বল করে দেয়। অনেকেই আমার মেসেজের রিপ্লাই দেওয়া বন্ধ করে দেয়। একা হয়ে যাই আমি। কারণ, তিনি কোনওভাবেই সমঝোতা করবেন না বলে জানতেন ইন্ডাস্ট্রির সেই সব লোকজন। আসলে আমি ছবি হারাতে রাজি। কিন্তু, কাস্টি কাউচের শিকার হতে রাজি নই।

বন্ধুকে নিয়ে রাধারমণ দত্ত লিখেছিলেন, বন্ধু বিনে প্রাণ বাঁচে না/আমি রব না রব না গৃহে/বন্ধু বিনে প্রাণ বাঁচে না…

সেই বন্ধু যদি হয় প্রাণ সখা তবে কেন নাহি হবে দেখা? ভারতের তারকাজুটি আনুষ্কা শর্মা আর বিরাট কোহলির জীবনে যেন রাধারমণ দত্তের কবিতার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে।

বিরাট আর আনুষ্কার বিয়ের বর্ষপূর্তি হতে যাচ্ছে আগামী ১১ ডিসেম্বর। হাতে এখনো প্রায় ১ সপ্তাহ সময়। এর মধ্যে বিরাট কোহলি রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ায়।

কিন্তু বন্ধু বিনে আনুষ্কার প্রাণ যেন বাঁচছে না। তাই দিনক্ষণ আসতে সপ্তাহখানেক বাকি থাকলেও হঠাৎ উড়ে গেছেন অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানে বিয়ে বর্ষপূর্তি সেলিব্রেশন করবেন তারা।

কোহলি যখন অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন তখন ‌‌জিরো ছবির কাজ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন আনুষ্কা। তাই হাতের কাজ সেরেই উড়াল দিলেন বিরাটের কাছে।