মেহেনাস তাব্বাসুম শেলি রোম প্রতিনিধিঃ ফেব্রুয়ারি বাঙ্গালী জনগনের গৌরেবোজ্জ্বল একটি মাস। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি যে চেতনায় উদ্দীপিত হয়ে বাঙালির রক্ত দিয়ে মাতৃভাষাকে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছিল, আজ তা দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে স্বীকৃতি লাভ করেছে।

ভাষা শহীদের রক্তস্রোত আর মায়ের অশ্রুভেজা অমর একুশ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষে জালালাবাদ এসোসিয়েশন নাপোলী শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে শিশু কিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভা।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে সকাল ১০ ঘটিকায় ‘ক’ ও ‘খ’ দুইটি শাখায় শিশু-কিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

দ্বিতীয় পর্বে বিকাল ৫ ঘটিকায় স্হানীয় একটি হলরুমে অমর একুশের পটভূমিকায় বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির প্রভাব এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্য সহ বিশ্ব জুড়ে জালালাবাদ এসোসিয়েশনের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই কোরআন তেলাওয়াত করেন পালমা জামে মসজিদের খতিব মোঃ জাহেদুর রহমান খান, পরে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

২৩ ফেব্রুয়ারি রবিবার আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইতালীর সভাপতি অলি উদ্দিন শামীম। এতে জালালাবাদ এসোসিয়েশন নাপোলী শাখার সভাপতি সরফ উদ্দিন এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আব্দুল খালিক এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইতালীর সহ সভাপতি গৌছ উদ্দিন, দেলওয়ার মোহাম্মদ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফিন আহমেদ আরিফ, প্রচার সম্পাদক মিনহাজ হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক মুন্না হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আবু হোসেন, অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি Ntv ইতালী বুরো প্রধান মনিরুজ্জামান মনির, মহিলা সংস্থা ইতালী ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেসমিন সুলতানা মিরা প্রমুখ।

এছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন নাপোলী শাখার প্রধান সমন্নয়কারী আব্দুল্লাহ আল মনছুর ওয়েছ, জাহাঙ্গির আলম শেখ, হুমায়ুন কবির, মাসুদ আহমেদ, আব্দুস শুক্কুর আব্দুল্লাহ, জুবের আহমেদ, বুল বুল আহমেদ, আব্দুল হাছিব, নাজমুল আলম, হাফিজুর রহমান শিশু, দবির হাছান, মিলু আহমেদ, নোমান উদ্দিন সহআরো অনেকেই।

এ সময় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি অলি উদ্দিন শামীম তার বক্তব্যেতে বলেন আমরা জালালাবাদবাসী শুধুমাত্র সিলেট বিভাগের জনগোষ্ঠীর জন্য কাজ করিনা, জালালাবাদ এসোসিয়েশন বৃহত্তর সিলেট সহ সারা বাংলাদেশর জন্য বহির্বিশ্বে কাজ করে যাচ্ছে । জালালাবাদ এসোসিয়েশন সিলেট বিভাগের জনগোষ্ঠীর প্রাচীনতম সংগঠন ১৯৪৭সালে ঢাকায় বসবাসরত বৃহত্তর সিলেটবাসীর উদ্যোগে এই সংগঠনের যাত্রা এবং ১৯৪৮সালে ঢাকা থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে আত্মপ্রকাশ তাঁরই ধারাবাহিকতায় আজ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জালালাবাদবাসীদের এই সংগঠন সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছে । জালালাবাদ এসোসিয়েশন ইতালীতে ১৯৮৯সালে বাংলাদেশীদের প্রথম ইতালী সরকার কতৃক রেজিস্ট্রি কৃত ৪০৮০ প্রাচীনতম সংগঠন জালালাবাদ এসোসিয়েশন মানবতার কল্যানে কাজ করে যাচ্ছে ।বর্তমানে ইতালীর বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে জালালাবাদ এসোসিয়েশনের শাখা গঠিত হয়েছে যেমন নাপলী,পালেরমো,এছাড়া ও মিলান,ভেনিস,আনকোনা ভিছেনচ্ছা সহ অন্যান্য বিভাগীয় শহরে প্রক্রিয়া ধীন । তাই আমরা বৃহত্তর সিলেটবাসী ঢাকা সহ সারা বিশ্বের সাথে ঐক্যবদ্ধ ভাবে ইতালীতে ও জালালাবাদ এসোসিয়েশনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি । পরিশেষে শিশু কিশোরদের পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে সভাপতি সরফ উদ্দিন সকলের সহযোগিতা কামনা করে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন ।