আবুল হোসেন রিপন, খাগড়াছড়ি//

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলায় হামে আক্রান্তদের পরিবারের মাঝে পুষ্টিকর খাদ্য সামগ্রী ও ঔষধ বিতরণ করেছে খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। শুক্রবার সকালে ভয়ংকর করোনা আতংক উপেক্ষা করে দীঘিনালা উপজেলা সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রত্যন্ত পাহাড়ী পল্লীর হামে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন হত-দরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি’র দেওয়া উপহার (চাল, ডাল, আলু, তেল, লবণ, পেঁয়াজ, ডিম)’সহ পুষ্টিকর খাদ্য, সেনিটাইজার ও ঔষধ সামগ্রী তুলে দেন খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি টিকো চাকমা, ছাত্রলীগ নেত্রী নিবেদিতা রোয়াজা, মুন্না চাকমা প্রমুখ ছাড়াও ছাত্রলীগের জেলা উপজেলার অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় এসময় সাধারণ মানুষকে ভয়ানক করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে সকলকে সচেতন হওয়ার আহবান জানানোর পাশাপাশি ঘন ঘন হাত ও মুখ ধৌত করা ছাড়াও মুখে মাস্ক ব্যবহার করার কথা বলেন ছাত্রলীগ টিকো চাকমা,
ছাত্রলীগ নেত্রী নিবেদিতা রোয়াজা জানান, আমরা দীঘিনালা উপজেলায় আজ প্রায় অর্ধশত পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি’র দেওয়া উপহার পুষ্টিকর খাদ্য এবং ঔষধ সামগ্রী বিতরণ করেছি। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য উপজেলায়ও বিতরণ করা হবে।

হামে আক্রান্ত পরিবারের সদস্য শেফালিকা ত্রিপুরা জানান, করোনা আতংকে সারা দেশের ন্যায় পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির অন্যান্য উপজেলার মত দীঘিনালা উপজেলায়ও গত কয়েকদিন ধরে অঘোষিত লক ডাউন চলছে। এতে করে সাধারণ মানুষের জীবন যাত্রা অনেকটাই থমকে গেছে। অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটছে এখানকার খেটে খাওয়া মানুষদের। এরইমধ্যে “মরার উপর খরার ঘা” হয়ে মহামারি হামে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েইে চলছে। এ অবস্থায় এসব পুষ্টিকর খাদ্য ও ঔষধ সামগ্রী’কে আর্শিবাদ হিসেবে নিয়েছে তারা।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি দীঘিনালা ও তার সীমান্তবর্তী রাঙ্গামাটির সাজেকে হাম রোগ মহামারী আকার ধারণ করেছে। এতে অকালেই ঝরে গেছে অনন্ত ৮/১০টি শিশুর প্রাণ। এ পরিস্থিতিতে তা প্রতিরোধে নানা পদক্ষেপ গ্রহন করে সরকার।